বাংলায় ক্ষমতা দখলের চেষ্টায় পুরোদমে ঝাপাচ্ছে বিজেপি, লোকসভা নির্বাচনের থেকেও বেশি সভা মোদীর

0
81

#বিধানসভা_নির্বাচন:  শেষ বিহার নির্বাচন, এবার সকলের নজর বাংলায়। চলতি বছর ঘুরলেই বিধানসভা নির্বাচন বাংলায়। পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির প্রচারের মূল উদ্যোক্তা হবেন খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ভোট প্রচারের ক্ষেত্রে তিনিই যে প্রধান মুখ হিসেবে থাকবেন সেকথা বহুদিন আগে ঠিক করে রেখেছে বিজেপি।

বিজেপি সূত্রে খবর, বাংলায় এক ডজনেরও বেশি নির্বাচনী জনসভা করবেন প্রধানমন্ত্রী এবং জনসভা হবে রাজ্যে ভোটের নির্ঘণ্ট ঘোষণা হওয়ার পরে। ভোটের দিন ঘোষণার পর জনসভার হওয়ার অনেক আগেই প্রধানমন্ত্রীর প্রচার শুরু হয়ে যাবে। আগামী বছরের জানুয়ারি মাস থেকেই প্রধানমন্ত্রীকে দিয়ে বাংলায় প্রচারের কাজ শুরু করবে বিজেপি। দলীয় কর্মসূচি থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রকল্প উদ্বোধনের অনুষ্ঠানেও বাংলায় থাকবেন মোদী। এই খবর পাওয়ার পরেই প্রধানমন্ত্রী কবে থেকে বাংলায় আসবেন তা নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। তাতে অবশ্য তড়িঘড়ি এখনই প্রধানমন্ত্রীকে দিয়ে প্রচার শুরু করা হবে না বলে ঠিক করেছে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।

রাজ্যে নির্বাচনী প্রচার যে সময় তুঙ্গে থাকবে তখনই বিজেপির হয়ে মাঠে নামবেন নরেন্দ্র মোদী। মোদী তো থাকবেনই সঙ্গে দলের তারকা প্রচারকদেরও বাংলায় ভোট প্রচারে নামানো হবে বলে ঠিক করেছে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। দলের ‘ফায়ার ব্র্যান্ড’ নেতা ও উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে বাংলার নির্বাচনে প্রচারের কাজে বিশেষভাবে ব্যবহার করা হবে।

Advertisement

এর পাশাপাশি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানির মতো নেতৃত্ব থাকবে। একদিকে যেমন তুখোড় রাজনৈতিক বক্তাদের বাংলার ময়দানে নামানো হবে, অন্যদিকে আবার হেমা মালিনী, জয়াপ্রদা, রবি কিষেণ, মনোজ তিওয়ারির মতো ফিল্মি দুনিয়া থেকে রাজনীতির ময়দানে আসা তারকাদেরও বাংলায় ভোট প্রচারে ব্যবহার করা হবে।

এই প্রথমবার অমিত মালব্যকে কোনও রাজ্যের সাংগঠনিক দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। করোনার সংক্রমণের জেরে সশরীরে প্রচারের ক্ষেত্রে যা ঘাটতি থাকবে তা ফেসবুক, টুইটার ও হোয়াটসঅ্যাপের মতো সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে প্রচার করে, ওই ঘাটতি মেটাবেন অমিত মালব্য।

 

Leave a Reply