পুত্র সন্তানের আশায়, রাঁচিতে তান্ত্রিকের প্ররোচনায় পিতার হাতে বলি ৬ বছরের কন্যা

0
149

#রাঁচি: মানুষ যে সভ্য জীব সেটা নিয়ে তার বড়াইয়ের শেষ নেই। আদিম, বর্বর অবস্থা থেকে শুরু করে আমরা প্রযুক্তির এই তুমুল অগ্রগতির সময়ে পৌঁছে গিয়েছি। কিন্তু আজও কি মানুষ পুরোপুরি সভ্য হতে পেরেছে? ঘৃণ্য কুসংস্কারের কবল থেকে মুক্ত হতে পেরেছে কি? রাঁচির এক নৃশংস হত্যাকাণ্ড নতুন করে যেন সেই প্রশ্নই তুলে দিল। এক পিতা নিজের ছ’বছরের ফুটফুটে কন্যাসন্তানকে ‘বলি’ দিল পুত্র সন্তানের কামনায়।

২৬ বছরের সুমন নেগাসিয়া রাঁচির বাসিন্দা। তিনি পেশাগতভাবে শ্রমিকের কাজ করত। তার মনেপ্রাণে পুত্রসন্তানের বাবা হওয়ার প্রবল আকুতি ছিল। এই পরিস্থিতিতে একজন তান্ত্রিকের পাল্লায় পড়ে কুসংস্করাচ্ছন্ন সুমন। তিনি সেই তান্ত্রিকের কাছ থেকে কুমন্ত্রণা পেতে থাকে। ওই তান্ত্রিক সুমনকে বোঝায় যে নিজের মেয়েকে হত্যা করলে সেই মেয়ে আবার নতুন করে জন্ম নিয়ে ছেলে হয়ে ফিরে আসবে তারই কাছে। অভিযুক্ত সুমন অন্ধবিশ্বাসের কবলে পড়ে ঠিক সেটাই করতে মনস্থ করে ফেলে। গলা কেটে সে তার নিজের ছোট্ট মেয়েকে খুন করে। সুমনের স্ত্রী ঘটনার সময় নিজের বাপের বাড়ি গিয়েছিলেন এবং সেই জন্য তাকে বাঁধা দেওয়ারও কেউ ছিল না।

অভিযুক্তকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। মৃত শিশুর দেহ ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে। শিশুটির মা ঘটনার অভিঘাতে তীব্র শোকাহত। তিনি থেকে থেকেই জ্ঞান হারাচ্ছেন। একাজে উসকানি দেওয়ার সেই তান্ত্রিকের খোঁজ করছে পুলিশ । পুলিশ তাকে শিগগিরি ধরার ব্যাপারে আশাবাদী। কন্যা শিশু হত্যার ইতিহাস ভারতে কয়েক শতাব্দী পুরনো। কন্যাভ্রূণ হত্যা হচ্ছে এর মধ্যে অন্যতম। পুত্রসন্তানের প্রতি তীব্র আকাঙ্ক্ষা হচ্ছে এর পিছনে কারণ। রাঁচির এই ঘটনা আরও একবার সেই প্রবণতাকেই নতুন করে তুলে ধরল।

Advertisement

Leave a Reply