বিহারের রাজনীতির ইতিহাসে এই প্রথম! মন্ত্রিসভায় নেই কোনো মুসলিম সদস্য

0
178

#বিহার:   দুই উপমুখ্যমন্ত্রী ও ১৪ জন সদস্য নিয়ে ক্যাবিনেট গড়েছে সপ্তমবারের জন্য সদ্য বিহারের মসনদে বসা নীতীশ কুমারের নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট। কিন্তু মন্ত্রিসভা গঠনের সঙ্গে সঙ্গেই প্রশ্নের মুখে সেই মন্ত্রীসভা। কারণ ১৬ শতাংশ মুসলিম জনসংখ্যা অধ্যুষিত বিহারের রাজনৈতিক ইতিহাসে এই প্রথমবার মন্ত্রীসভায় নেই একজনও মুসলিম সদস্য। যা কিনা বিরল। এর অন্যতম কারণ হলো, বিহারে এনডিএ-র কোনও মুসলিম বিধায়কই নেই। তাই স্বাভাবিকভাবেই মন্ত্রীসভা গঠনের সময় উঠে আসেনি কোনো মুসলিম নাম। যদিও বিতর্ক থামাতে জেডিইউ-র (JDU) তরফে দাবি করা হয়েছে, সম্প্রসারণের সময় মুসলিম প্রতিনিধিকে বিহার (Bihar) মন্ত্রিসভার সদস্য করা হবে।

প্রসঙ্গত সদ্য সমাপ্ত বিহার বিধানসভা নির্বাচনে এনডিএ কোনক্রমে উতরে গিয়েছে ক্ষমতা দখলের ম্যাজিক ফিগার। শেষ পর্যন্ত টানটান লড়াইয়ের পর
১২৫ এই থামতে হয়েছে এনডিএ’কে। যার মধ্যে বিজেপি একাই পেয়েছে ৭৪ টি আসন। আর জেডিইউএর খাতায় গিয়েছে – ৪৩ টি আসন।

উল্লেখ্য গত সোমবার মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার শপথ নেন। তাঁর সঙ্গে শপথ নেন মোট ১৪ জন মন্ত্রীও। যাঁদের মধ্যে দুই উপমুখ্যমন্ত্রী-সহ মোট সাতজন বিজেপির বিধায়ক। মুখ্যমন্ত্রী-সহ পাঁচজন জেডিইউ বিধায়ক ও বাকি দুজন হাম ও ভিআইপি-র সদস্য। গুরুত্বের নিরিখে দেখতে গেলে অধিকাংশ গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরই রয়েছে বিজেপির হাতে। তবে স্বরাষ্ট্র দপ্তরের দায়িত্ব নিজের হাতে রেখেছেন নীতীশ কুমার।

Advertisement

এদিকে রাজনৈতিক মহলের অভিযোগ, বিজেপির অঙ্গুলিহেলনেই চলবেন নীতীশ কুমার ও তাঁর মন্ত্রিসভা। ক্যাবিনেট গঠনেই তার ছাপ পাওয়া গেল বলেই মনে করছেন তাঁরা। উল্লেখ্য, গতবার নীতীশ কুমারের মন্ত্রিসভার একমাত্র মুসলিম প্রতিনিধি ছিলেন খুরশিদ আলম। এবারের মন্ত্রিসভায় দলিত, যাদব, ভূমিহারা, ব্রাহ্মণ, রাজপুত সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিরা রয়েছেন। নেই কেবল মুসলিম সম্প্রদায়ভুক্ত কোনও মন্ত্রী। যা নিয়ে ইতিমধ্যে বিতর্ক মাথাচারা দিয়েছে।

এই প্রসঙ্গে জেডিইউয়ের এক এমএলসি কোমার আলম বলেন, “নীতীশ কুমারে মন্ত্রিসভা সম্প্রসারণের সময় একজন মুসলিম প্রতিনিধিকে নিয়োগ করা হবে। এবার আমাদের দলের তরফে ১১ জন মুসলিম প্রতিনিধিকে দাঁড় করানো হয়েছিল, কিন্তু তাঁরা কেউই জিততে পারেননি। তা বলে নীতীশ কুমারের মন্ত্রিসভায় মুসলিম সদস্য থাকবেন না, তা হতে পারে না। গত ১৫ বছরে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জন্য প্রচুর উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।”

Leave a Reply