তপসিয়া অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে যাওয়া বস্তিবাসীদের স্থায়ী পূনর্বাসনের ব্যবস্থা করবে কলকাতা পৌরসভা, নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর

0
72

#তপসিয়া_অগ্নিকাণ্ড:  ভয়াবহ আগুনে পুড়ে যাওয়া তপসিয়ার বস্তিবাসীদের স্থায়ী পাকা ঘর তৈরি করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য সরকার। মঙ্গলবার রাতে হঠাৎ তপসিয়ার বস্তিতে আগুন লাগায় প্রায় ৮০টি ঘর ভস্মীভূত হয়ে যায়। সর্বগ্রাসী আগুনে বস্তিবাসীদের সর্বোচ্চ পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এমনিতেই করোনার কারণে অধিকাংশ বস্তিবাসীই কাজ হারিয়েছিলেন। তার ওপর গত মঙ্গলবার অগ্নিকাণ্ডের ফলে মাথার উপর থাকার ছাদটুকুও হারিয়ে এই মুহূর্তে অসহায় পরিস্থিতিতে পরিবারগুলি। তাদের শুরু হওয়ার কথা ভেবে সেই কারণেই সেচ দপ্তরের জমিতে ওই বাসিন্দাদের জন্য পাকা ও স্থায়ী বাড়ি বানিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মঙ্গলবার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তবে স্থায়ী পরিকাঠামো করে তোলার কাজ কবে শুরু হবে সে বিষয়ে স্পষ্ট কিছু জানা যায়নি।

বুধবার পুরমন্ত্রী ও পৌরসভার মুখ্যপ্রশাসক ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছেন, “বস্তিবাসীদের পাকা বাড়ি তৈরি করে দেওয়া হলে সেখানে আগুন লাগার সম্ভাবনাও অনেক কম। ফ্ল্যাট তৈরি হলে বস্তিবাসীদের সেখানে স্থায়ীভাবে স্থানান্তরিত করা হবে। ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী বস্তিবাসীদের স্থায়ী বাসস্থান করে দেবার লক্ষ্যে একটি প্রকল্প অনুমোদন করেছেন।”

তবে আসন্ন শীতের মধ্যে পরিবারগুলি কিভাবে রাত কাটাবে সে ভেবেই চিন্তিত পুরসভার আধিকারিকরা। আপাতত অস্থায়ীরূপে তাদের কোথায় রাখা যায় সেই নিয়েই ভাবনা চিন্তা করছেন তারা। এদিকে প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিশ জানিয়েছে, ঝুপড়ির মধ্যেই একটি ছোট মাপের বেআইনি রাসায়নিক কারখানা গড়ে উঠেছিল। সেই কারখানার ভিতরেই ছুঁড়ে ফেলা কারও সিগারেটের টুকরো থেকেই প্রথমে আগুন লাগে। কোনও একটি রাসায়নিকের পাত্র বা রঙের ড্রাম জাতীয় আধারে আচমকা বিস্ফোরণ ঘটে আগুন আকাশের দিকে ছিটকে যায়। আর সেখান থেকেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে খালপাড় বস্তিতে।

Advertisement

Leave a Reply