আন্দোলনকারী কৃষকদের গ্রেপ্তারের জন্য দিল্লির নয়টি স্টেডিয়ামকে অস্থায়ী জেল রুপে ব্যবহারের আবেদন দিল্লি পুলিশের, সরাসরি নাকচ কেজরিওয়াল সরকারের

0
302

#কৃষক_আন্দোলন:  ক্ষোভের ধিকি ধিকি আগুন অগ্নিকুন্ডের চেহারা নিয়েছে ইতিমধ্যেই। দিল্লি পুলিশের কোভিড গাইডলাইন নিষেধাজ্ঞার তোয়াক্কা না করেই দিল্লির অভিমুখে এগিয়ে চলেছে পাঞ্জাবের প্রতিবাদী কৃষকদল। গত বুধবার‌ই দিল্লির পুলিশ কমিশনার জানিয়েছিলেন, নিষেধাজ্ঞা না শুনলে গ্রেফতার করা হবে প্রতিবাদীদের। গতকালও কৃষকদের দিল্লির দিকে যাত্রা না করে ফিরে যাওয়ার জন্য আহ্বান করা হয়। কিন্তু দিল্লি পুলিশের সেই আদেশের তোয়াক্কা না করে বিপুল জোশের সাথে এদিন সকাল থেকেই রাজধানীর উদ্দেশ্যে এগোতে থাকে বিক্ষুব্ধ কৃষক দল। সেইমতো প্রতিবাদী কৃষকদের গ্রেপ্তারের তোড়জোড় শুরু করে দিল্লি পুলিশ।

তবে প্রতিবাদী কৃষকদের আন্দোলন কোনোভাবেই নিয়ন্ত্রণে আনতে না পারার সাথেই গ্রেপ্তারের নির্দেশ নিয়েও ধন্দে পড়েছে দিল্লি পুলিশ। সূত্র অনুযায়ী, আন্দোলনকারী কৃষকের সংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার। এই বিপুলসংখ্যক আন্দোলনকারীকে গ্রেফতার করা হলেও তাদের কোথায় স্থানান্তরিত করা হবে সে নিয়ে যথেষ্টই বিপাকে তারা। কারণ কোনো জেলেই এত সংখ্যক আন্দোলনকারীকে রাখা যাবে না। সেই কারণেই এই সমস্যা সমাধানের জন্য দিল্লি প্রশাসনের শরণাপন্ন হয় দিল্লি পুলিশ। দিল্লির পুলিশ কমিশনার আপ সরকারের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন রাজধানীর ৯টি স্টেডিয়ামকে অস্থায়ী জেল হিসেবে ব্যবহারের অনুমতি দেওয়ার জন্য। এ দিন সকালেই দিল্লি পুলিশের তরফে কেজরিওয়াল প্রশাসনের কাছে এই মর্মে আবেদন জানানো হয়।

কিন্তু দিল্লি পুলিশের সকল আবেদন অগ্রাহ্য করে কেজরিওয়াল প্রশাসনের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়, কৃষকদের গ্রেপ্তার করে রাজধানীর স্টেডিয়ামগুলিকে অস্থায়ী জেলা হিসেবে ব্যবহার করার অনুমতি কোনোভাবেই দেওয়া যাবে না।

Advertisement

Leave a Reply