সর্বোত্তম দক্ষতার ভাণ্ডার এবং বৃহত্তম বাজার নিয়ে পরবর্তী তথ্যপ্রযুক্তির যুগে পা রাখতে সম্পূর্ণ প্রস্তুত ভারত, বেঙ্গালুরুর সম্মেলনে দাবি প্রধানমন্ত্রীর

0
144

#নরেন্দ্র-মোদী: সর্বোত্তম দক্ষতার ভাণ্ডার এবং বৃহত্তম বাজার নিয়ে অনায়াসেই পরবর্তী তথ্যযুগে দ্রুত পা রাখতে প্রস্তুত ভারত, বৃহস্পতিবার বেঙ্গালুরু প্রযুক্তি সম্মেলনে এমনটাই দাবি করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রী এদিন মোদী বলেছেন, “আমাদের তরুণ প্রজন্মের প্রতিভা এবং প্রযুক্তিগত সম্ভাবনা অন্তহীন। তাঁদের জন্য নিজেদের সর্বস্ব দেওয়ার এবং তাঁদের অনুপ্রাণিত করার এটাই সঠিক সময়। আমাদের তথ্য প্রযুক্তি ক্ষেত্র দেশকে গর্বিত করবে বলেই বিশ্বাস করি।”

মোদী এদিন মন্তব্য করেছেন, প্রয়োজনে দরিদ্রদের জন্য আবাসন নির্মাণ থেকে শুরু করে প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে গতিবেগ বৃদ্ধি, সব কিছুতেই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে প্রযুক্তি। তিনি আরও বলেছেন, “ভবিষ্যতে আমরা তথ্যযুগের মধ্যে প্রত্যাশিত সময়ের আগেই পা রাখতে রাখবো। শিল্পযুগে পরিবর্তন ঘটেছে সামান্যই, কিন্তু তথ্যযুগে দ্রুত বদল ঘটছে।”

উদাহরণস্বরূপ মোদী এদিন বলেছেন, “অতীতে যুদ্ধে কোন পক্ষ বেশি শক্তিশালী, তা নির্ধারিত হত কার কত সংখ্যক হাতি-ঘোড়া রয়েছে তার উপর। কিন্তু বর্তমানে বিশ্বের যে কোনও সংঘাতে প্রযুক্তি বড়ভূমিকা পালন করছে।” মোদীর কথায়, “সফ্টওয়্যার থেকে ড্রোন থেকে ইউএভি, প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রের সংজ্ঞা পাল্টে দিচ্ছে প্রযুক্তি। তথ্যযুগে কে প্রথম পদক্ষেপ করলো, তা গুরুত্বপূর্ণ নয়, বরং কে বাজিমাত করলো সেটাই গুরুত্বপূর্ণ। যে কোনও মুহূর্তে যে কেউ এমন একটি পণ্য তৈরি করে ফেলতে পারে যা বাজারের প্রচলিত সমীকরণ উলটে দিতে পারে।”

Advertisement

সম্মেলনে মোদী বলেন যে বছর পাঁচেক আগে উদ্বোধন হওয়া দেশের ডিজিটাল ইন্ডিয়া অভিযানের মাধ্যমে ডিজিটাল বিভাজন এবং মানব-কেন্দ্রিক পদক্ষেপের মধ্যে সেতু গড়ে তোলা সম্ভব হয়েছে। তিনি আরও দাবি করেছেন, “রিপোর্ট অনুযায়ী, ২৫ বছর আগে ভারতে ইন্টারনেট প্রবেশ করেছিল। বর্তমানে ইন্টারনেট সংযোগের সংখ্যা ৭৫ কোটির মাইলফলক ছাড়িয়ে গিয়েছে।”

প্রধানমন্ত্রী মোদী এদিন দাবি করেছেন, “প্রযুক্তির সাহায্যে আমরা মানুষের মর্যাদার বিকাশ ঘটিয়েছি। একটি মাত্র ক্লিকের সাহায্যে কোটি কোটি কৃষক আর্থিক সহায়তা লাভ করছেন। লকডাউনের কঠিন পরিস্থিতিতে দেশের দরিদ্ররা যাতে তাড়াতাড়ি আর্থিক সাহায্য লাভ করেন, তা নিশ্চিত করেছে প্রযুক্তি। এই সাহায্যের মাত্রা তুলনাহীন।”

 

Leave a Reply