চিনের চিন্তা বাড়িয়ে ফিলিপিন্সকে ব্রহ্মস সুপারসনিক মিসাইল দেওয়ার চু্ক্তি ভারতের

0
134

#ব্রহ্মস: কোনওকালেই পড়শি দেশগুলির সঙ্গে চিনের সদ্ভাব ছিল না। জাপান, ভিয়েতনাম, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ব্রুনেই, ফিলিপিন্স–সহ একাধিক দেশ দক্ষিণ চিন সাগরে বেজিংয়ের অতি আগ্রাসী মনোভাবে চটে লাল।

এহেন পরিস্থিতিতে এবার ভারত ও রাশিয়া যৌথভাবে ফিলিপন্সকে অত্যাধুনিক ব্রহ্মস সুপারসনিক ক্রুজ মিসাইল জোগান দিতে চলেছে। এই দুই দেশ শুধু ফিলিপিন্স নয়, ইন্দোনেশিয়া–সহ মধ্য এশিয়ার একাধিক দেশকেও এই মিসাইলটি দেবে। এমনটা খোদ রাশিয়ান ডেপুটি চিফ অব মিশন রোমান বাবুসকিন জানিয়েছেন। ভারত–ফিলিপিন্স দুই দেশ আগামী বছরের শুরুতেই চুক্তিতে সই করবে । এর ফলে চিনেরআরও চিন্তা বাড়বে। এমনটাই মনে করছেন কূটনীতিকরা।

বাবুসকিন এই প্রসঙ্গে বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন, ‘‘ব্রহ্মস সুপারসনিক ক্রুজ মিসাইল নিয়ে করা সবরকম পরীক্ষা সফল হয়েছে। মূলত এর রেঞ্জ এবং মারণক্ষমতা বাড়াতেই এই পরীক্ষাগুলো করা হয়েছিল। পশ্চিম এশিয়ার বহু দেশ এখন এই মিসাইল নিজেদের ভাঁড়ারে চাইছে। ফিলিপিন্সকে এই মিসাইল জোগান দেওয়ার মাধ্যমে আমরা অন্যান্য দেশের হাতে এই মিসাইল তুলে দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু করব।’’

Advertisement

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ব্রহ্মস মিসাইল রাশিয়া এবং ভারতের যৌথ উদ্যোগে তৈরি। ব্রহ্মস ক্ষেপণাস্ত্র ২০০৬ সালে স্থলসেনা ও নৌসেনার অস্ত্র ভাণ্ডারে যুক্ত হয়। প্রথমে ২৯০ কিলোমিটার থাকলেও পরে এর মারণ ক্ষমতা বাড়িয়ে ৪০০ কিলোমিটার করা হয়। মিসাইলের গতিবেগ ২.৮ ম্যাক।অর্থাৎ শব্দের থেকেও তিনগুণ বেশি। ব্রহ্মস প্রতি সেকেন্ডে এক কিলোমিটার পথ অতিক্রম করতে পারে। ৯৯.৯৯ শতাংশ নিখুঁত ভাবে যে কোনও টার্গেটে হামলা চালাতে পারে। এই ক্রুজ মিসাইল, ব্যালিস্টিক মিসাইল ‘অগ্নি’ ও ‘পৃথ্বী’র মতোই মারাত্মক। এই মিসাইল একবার লঞ্চ করা হলে একে আটকানো শত্রুর পক্ষে একে কার্যত অসম্ভব। শত্রুপক্ষ ব্রহ্মস মিসাইলের চরিত্র ও গতিবিধি আঁচ করতে পারে না। এই ব্রহ্মস মিসাইলকে ভারতের তিন সেনাবাহিনীতে অর্থাৎ বায়ুসেনা, স্থলসেনা এবং নৌসেনাতে যুক্ত করা হয়েছে। এই মিসাইলটির মারণ ক্ষমতাও সফলভাবে পরীক্ষিত হয়েছে।

Leave a Reply