১৪ বছরেই স্নাতক! অবিশ্বাস্য কীর্তি হায়দ্রাবাদের বহুমুখী প্রতিভার কিশোরের

0
167

#হায়দ্রাবাদ:  মানুষ চাইলে কি না করতে পারে! যে-বয়সে আমরা স্কুলের গন্ডি অবধি পেরোতে পারি না, সেই বয়সেই স্নাতক ডিগ্রী লাভ করল হায়দ্রাবাদের অগস্ত্য জয়সওয়াল। মাত্র ১৪ বছর বয়সেই কলেজের পাঠ চুকিয়ে এবার ভবিষ্যতের দিকে যাত্রা করার পরিকল্পনা করছে বহুমুখী প্রতিভার এই কিশোর। প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই ওসমানিয়া বিশ্ববিদ্যালয় ডিগ্রী পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। আর সেখানেই জনসংযোগ ও সাংবাদিকতায় স্নাতক হয়েছেন অগস্ত্য।পাশাপাশি ভারতের প্রথম কিশোরী হিসেবে এই বয়সে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেছেন হায়দ্রাবাদ নিবাসী এই বিস্ময় বালক।

তবে এই প্রথম নয়, এর আগেও অল্প বয়সে বিভিন্ন পরীক্ষায় সাফল্য অর্জন করেছে অগস্ত্য। মাত্র ৯ বছর বয়সে দশম শ্রেণীর পরীক্ষায় ৭.৫ জিপিএ সহ উত্তীর্ণ হয় সে। ১১ বছর বয়সে ৬৩ শতাংশ নম্বর নিয়ে সে ইন্ডারমিডিয়েট দ্বিতীয় বর্ষের পরীক্ষায় পাশ করে। হায়দ্রাবাদের ইউসুফগুড়া সেন্ট মেরি কলেজ থেকে স্নাতক হয়েছে সে।

শুধু পড়াশোনার মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকেনি অগস্ত্যর পারদর্শিতা। পড়াশোনার পাশাপাশি খেলাধূলোতেও সমানভাবে পারদর্শী সে। বর্তমানে অগস্ত্য জাতীয় পর্যায়ের টেনিস খেলোয়াড়। ইংরেজিতে সব কয়টি স্বরবর্ণ সে মাত্র ১.৭২ সেকেন্ডে টাইপ করতে পারে। পাশাপাশি, দুহাতেই সমানভাবে লিখতে সিদ্ধহস্ত সে।
এটুকুতেই সীমাবদ্ধ নয় তাঁর প্রতিভার তালিকা। পড়াশোনা ও খেলাধুলার পাশাপাশি সে একজন সঙ্গীতশিল্পী ও পিয়ানো বাদক। আন্তর্জাতিক মোটিভেশনাল বক্তা হিসেবেও তাঁর পরিচিতি রয়েছে। সবমিলিয়ে অগস্ত্য বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী।

Advertisement

তাঁর অভিভাবকদের সাথে কথা থেকে স্পষ্ট যে অগস্ত্যর এই বহুমুখী প্রতিভার পিছনে তাঁদের সঠিক অন্বেষণ প্রক্রিয়া অনেকাংশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে। তাঁর মা-বাবা জানালেন, প্রত্যেক শিশুরই বিশেষ গুণ রয়েছে। তাই অভিভাবকেরা যদি এই বিশেষ গুণাবলীর দিকে ব্যক্তিগত নজর দেন, তাহলে তারা নিজস্ব ক্ষেত্রে ইতিহাস গড়তে পারে। আমরা খেলার ছলে ওকে শিখিয়েছি। আর সব সময়ই ওকে বিষয়টা বুঝে নিয়ে নিজের ভাষায় রপ্ত করতে শিখিয়েছি। ও সব সময়ই প্রচুর প্রশ্ন করে এবং আমরা বাস্তবসম্মতভাবে সেগুলির উত্তর দিতে চেষ্টা করি। মাত্র দু’বছর বয়সে ও তিনশ’র বেশি প্রশ্নের উত্তর দিতে পারতো। আমরা ওকে হাতের লেখা ও স্মরণশক্তির অভ্যেস শিখেয়েছি। তবে সবটাই করা হয়েছে খেলার ছলে। ভাষা ও অঙ্ক আমরা ওকে সঠিক পদ্ধতিতে শিখেয়েছি।

Leave a Reply